ব্যাকলিংক Backlink কি ব্যাকলিংকের গুরুত্ব এবং কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন ?

​আসলে আমরা অনেকেই জানিনা যে, ব্যাকলিংক (Backlink) প্রকৃতপক্ষে কি এবং কিভাবে এটি আমাদের সাইটের জন্য কাজ করে। ​আসুন আজকের আমরা এই আর্টিকেলে ব্যাকলিংক (Backlink) নিয়েই বিস্তারিত আলোচনাটা শুরু করি। আজকে আমি যে বিষয়গুলি নিয়ে কথা বলার চেষ্টা করবো সেগুলি হচ্ছেঃ

  • ব্যাকলিংক, Backlink কি ?
  • ​সাইটে ব্যাকলিংক, Backlink কেন দরকার ?
  • ব্যাক ​লিংক এর বৈশিষ্ট গুলি কি ?
  • ​ইন্টারনাল ব্যাকলিংক, Internal Link, এবং এক্সটারনাল ব্যাকলিংক, External Link লিংক কি?
  • ​কি করলে আপনি ভালোমানের ব্যাকলিংক পেতে পারেন?

ব্যাকলিংক Backlink কি ব্যাকলিংকের গুরুত্ব এবং কিভাবে ব্যাকলিংক তৈরি করবেন ?

আমি এখানে ব্যাকলিংক (Backlink) করার যে উপায়গুলি আছে সেগুলি নিয়ে কোনো আলোচনা করবো না। তবে আগামীতে এই লেখার আরো একটি পর্ব আমি পাবলিশ করবো। যেখানে ভালোমানের ব্যাকলিংক (Backlink) তৈরি করার উপায় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

ব্যাকলিংক, Backlink কি ?

ব্যাকলিংক হচ্ছে একটি এক্সটারনাল লিংক (External Link) যা অন্য একটি ওয়েবসাইট থেকে আপনার সাইট পেয়ে থাকে। Backlink হল একটি Web site কে বিভিন্ন web site -এ টিউমেন্ট, টিউন অথবা অন্য কোন উপায়ে সাইটের লিংক বিভিন্ন সাইটের সম্প্রসারিত করাকেই Backlink বা Link Building বলে। ব্যাকলিংক এর মানে হলো একটি সাইট থেকে আপনার সাইটের জন্য লিংক পাওয়া।

​আরো সহজভাবে বললে, আপনার একটি ওয়েব সাইট আছে এবং সেই সাইটের লিংকটি আপনি অন্য একটি সাইটে রাখলেন। তাহলে আপনি আপনার সাইটের জন্য একটি ব্যাকলিংক পাবেন সেই সাইট থেকে যেখানে আপনি আপনার সাইটের লিংক দিয়েছিলেন।

আপনার সাইট যদি A হয় এবং আপনি যে সাইটে আপনার সাইটের লিংকটি দিবেন সেটি যদি B হয়, তাহলে ব্যাকলিং হিসাবে বলতে গেলে আপনি B সাইট থেকে একটি ব্যাকলিংক পেলেন। এভাবে আপনি আপনার সাইটের লিংক যতগুলো সাইটে দিবেন আপনি তত ব্যাকলিংক পাবেন। আর সার্চ ইন্জিন অপটিমাজেশন এ এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসাবে ধরা হয়। অর্থ্যাৎ, আমরা এক কথায় বলতে পারি যে'অন্য সাইট থেকে আমরা আমাদের নিজেদের সাইটে যে ইনকামিং লিংক পাই তাকে ব্যাকলিংক বলে।​

এখন আপনার মনে একটি প্রশ্ন আসতে পারে যে, বাইরের ঐ সাইটটি কেন আপনাকে ব্যাকলিংক দিবে? 

​উত্তরেঃ আমি একটি উদাহরন দিচ্ছি, মনে করুন আপনার এক বন্ধু আপনার কাছে জানতে চাইলো যে সে কিভাবে এসইও শিখতে পারে। আর আপনি তাকে বললেন যে, বিবিসি ফ্লাই এ আরিফুল ইসলামের আর্টিকেল দেখো।

একটু ভেবে দেখুন এখানে আমি কিন্তু আপনাকে বলিনি যে, আপনি আপনার বন্ধুর কাছে আমার আর্টিকেল দেখার জন্য বলেন। কিন্তু আপনি তাকে বলেছেন, কারন আপনার মনে হয়েছে আমার আর্টিকেল পড়লে সে সহজেই এসইও শিখতে পারবে।

​এই যে আপনার মাধ্যমে আমার এবং বিবিসি ফ্লাই ওয়েবসাইটের একজন ভিজিটর বাড়লো অর্থাৎ আপনার বিবিসি ফ্লাই ওয়েবসাইটের আসলো, এটাই ব্যাকলিংক।

কেন ব্যাকলিংক Backlinks করবেন ?

আমার মতে, অফ পেজ SEO এর ধাপ গুলোর মধ্যে লিংক বিল্ডং বা ব্যাকলিংক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মূলত তিনটি কারনে একটি সাইটের জন্য ব্যাকলিংক করা হয়।

  • ​অথোরিটি তৈরি করা
  • ​সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাংকে আসা
  • ​ভিজিটরের সংখ্যা বাড়ানো
  • ​এখানে অথোরিটি বলতে বোঝানো হচ্ছে আপনার সাইটের ভ্যালু বাড়বে।

একটি সাইটের গুরুত্ব ও গ্রহনযোগ্যতা বাড়াতে ব্যাকলিংক বড়ানোর কোন বিকল্পই হয় না। এক একটি ব্যাকলিংক আপনার জন্য ভোট স্বরূপ। এর জন্য সার্চ ইন্জিন সবসময় খুঁজে বেড়ায় কোন সাইটের ব্যাকলিংক বেশি। কেননা, আপনি ও হয়তো কখনো চাইবেন না একজন অযোগ্য প্রার্থীকে একটি গুরুত্বপূর্ণ আসনে বসাতে। এর জন্য সার্চ ইন্জিনও তাদের প্রথম পেজটির জন্য বেশি গুরুত্ব দেয় ব্যাকলিংককে।

পার্সোনাল সাইট বা ব্লগ বা নিজের ব্যবসায়ীক ওয়েবসাইট এর জন্য লিঙ্ক বিল্ডিং করেন বা করতে চান, তাহলে আপনাকে গেস্ট ব্লগিং বা টিউমেন্ট ব্লগিং এর মাধ্যমে লিঙ্ক বিল্ডিং বা ব্যাক-লিঙ্ক তৈরি করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার সাইটের অফ পেজ SEO এর জন্য এটাই সবথেকে ভালো মাধ্যম। আপনার সাইটের জন্য সব থেকে বেশি ভিজিটর পাবেন আপনি এই পদ্ধতিতে। আর যখন আপনার সাইট বাইরের বিভিন্ন সাইট থেকে এমন ব্যাকলিংক পাবে, তখন সার্চ ইঞ্জিন ও আপনার সাইটকে গুরুত্ব বেশী দিবে এবং র‌্যাংক প্রদান করবে। আর যখন আপনি সার্চ ইঞ্জিনে র‌্যাংক করবেন তখন আপনার সাইটর অরগানিক ভিজিটর সংখ্যা বাড়বে। ​আশাকরি এখন বুঝতে পারছেন যে, কেন একটি ওয়েবসাইটের ব্যাকলিংক প্রয়োজন।

ব্যাক লিংক এর বৈশিষ্ট গুলি কি?

নো-ফলো ব্যাকলিংক (No-Follow)

​নো-ফলো(No-Follow) হচ্ছে একটি HTML Attribute, যা সার্চ ইঞ্জিন বটকে বলে দেয় যে, এই লিংকের জন্য ঐটার্গেট পেজটিকে সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাংকিং এ যেনো কোনো ভ্যালু দেয়া না হয়।

​অর্থাৎ, সার্চ ইঞ্জিন বট আপনার ঐ লিংটিকে আর ফলো করবে না। আর সার্চ ইঞ্জিন বট যদি লিংটিকে ফলো না করে তাহলে ঐ লিংকের মধ্যে দিয়ে কোনো লিংক জুস (Link Juice) পাস হবে না।  

​লিংক জুস (Link Juice) হচ্ছে একটি লিংকের পাওয়ার, যার মাধ্যমে লিংকে থাকা পেজটি ভ্যালু পেয়ে থাকে।

​সাধারনত, ঐসকল পেজকে আমরা নো-ফলো দিবো যেগুলি খুব বেশী অথোরিটি সম্পন্ন নয়, বা আমাদের অ্যাফিলিয়েট লিংকগুলি নো-ফলো হবে।

​নো-ফলো লিংকের উদাহরনঃ Google

​ডু-ফলো ব্যাকলিংক (Do-Follow)

​আপনি যদি লিংকের বৈশিষ্ট্য নো-ফলো না করেন তাহলে ডিফল্ট ভাবে লিংকটি ডু-ফলো করা থাকে। একটি লিংক যদি ডু-ফলো হয়, এর অর্থ হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন বট লিংকের মধ্যে দিয়ে পাস হয়ে টার্গেট পেজে চলে যাবে।

​এখন আপনি বলতে পারেন এতে লাভ কি? হ্যা, লাভ আছে। সেটি হচ্ছে, আপনার সাইটে লিংক জুস পাস হবে।  অর্থাৎ, সার্চ ইঞ্জিন বট এই লিংকের কারনে টার্গেট পেজকে র‌্যাংক পেতে সহায়তা করবে।

​যদিও বা এখানে আরো কিছু বিষয় রয়েছে, শুধু ডু-ফলো লিংক হলেই হবে না, আপনাকে যে পেজটি লিংক দিচ্ছে তার অবস্থানও সার্চ ইঞ্জিনে ভালো হতে হবে। তাহলেই আপনি এমন ডু-ফলো লিংক পেলে লাভোবান হবেন।

​ডু-ফলো লিংকের উদাহরনঃ Google

​ইন্টারনাল লিংক এবং এক্সটারনাল লিংক কি?

ইন্টারনাল লিংক (Internal Link): আপনি যখন একটি ওয়েবসাইটের ভিতরের একটি পেজের/পোষ্টের সাথে অপর পেজের/পোষ্টের লিংক করবেন তখন তাকে ইন্টারনাল লিংক বলে। একে Inbound Link ও বলে।

​সার্চ ইঞ্জিনে একটি সাইট র‌্যাংকিং এর ক্ষেত্রে Inbound Link এর গুরুত্ব অনেক বেশী। কারন, সঠিক ইন্টারনাল লিংকের মাধ্যমে আপনার সাইটের সকল পেজের/পোষ্টের মধ্যে লিংক জুস সঠিক ভাবে পাস হতে পারে। একারনে, ইন্টারনাল লিংক সাধারনত ডু-ফলো (Do-Follow) হয়ে থাকে।

​এক্সটারনাল লিংক(External Link): আপনি যখন আপনার ওয়েবসাইটের ভিতরের কোনো পেজের/পোষ্টের সাথে অপর একটি ওয়েবসাইটের পেজের/পোষ্টের লিংক করবেন তখন তাকে এক্সটারনাল লিংক বলে। এর অপর নাম Outbound Link।

​যেহেতু, এক্সটারনাল লিংক এর মাধ্যমে বাইরের সাইটকে লিংক দেয়া হয় একারনে এক্সটারনাল লিংক সাধারনত নো-ফলো (No-Follow) হয়ে থাকে। তবে, এর ব্যতিক্রমও হতে পারে। কারন হাই-অথোরিটি সাইটকে অনেকেই ডু-ফলো লিংক দিয়ে থাকে।

ভালোমানের ব্যাকলিংকঃ

আপনারা এটা নিশ্চই বুঝে গেছেন যে, একটি ভালো মানের ব্যাকলিংক পাওয়া সহজ কোনো কাজ নয়। এর জন্য আপনার সাইটিতে কিছু গুনাবলী থাকতে হবে। যেমন, ​আপনার সাইটটি টেকনিক্যাল এরর (Technical Error) ফ্রি একটি সাইট হতে হবে। এখানে টেকনিক্যাল এরর বলতে বোঝানো হচ্ছেঃ

  • ​Site loading speed problem
  • Mobile friendliness problem
  • Duplicate content
  • 404 errors
  • Canonical errors
  • Duplicate Meta data

আপনার সাইটটির ডিজাইন এবং আর্কিটিকচার ইউজার ফ্রেন্ডলি হতে হবে। যাতে করে একজন ইউজার সহজেই আপনার সাইট নেভিগেট করতে পারে।

​আপনার সাইটের কন্টেন্ট (Content) ভালো মানের হতে হবে। এটি খুবই গুরুত্বপর্ণ। কারন আপনার কন্টেন্ট ভালো হলেই আপনার কন্টেন্ট পেজকে অন্যান্য ইউজাররা শেয়ার করবে, সবার কাছে পৌছে দেবে। আর এভাবেই আপনি অন্যের চোখে পড়বেন এবং আপনার পেজকে অন্যান্য রিলিভেন্ট পেজ থেকে ব্যাকলিংক দিবে।

​আশাকরি উপড়ের আলোচনা থেকে আমি আপনাদের ব্যাকলিংক (Backlink) কি এটা বোঝাতে সক্ষম হয়েছি। আগামীতে আমি চেষ্টা করবো কিভাবে ব্যাকলিংক (Backlink) তৈরি করবেন, অর্থাৎ ব্যাকলিংক (Backlink) তৈরি করার বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করতে।

আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকলে আমাকে Follow করতে এবং পোষ্টি শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ সবাইকে।

মন্তব্য

 

একটি মন্তব্য করতে প্রবেশ বা নিবন্ধন করতে হবে।

 

 

এই সম্পরকিত আরও »
১১, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩:০০ পূর্বাহ্ণ - মেসিলা ইয়াসমিন
লেখক সম্পর্কে

থেমে গেছি,কিন্তু হেরে যায়নি..!! আবার যদি চলা শুরু করি গন্তব্য পৌঁছানো পর্যন্ত কেউ থামাতে পারবেনা.....!!

জনপ্রিয় পোস্ট »
০৮, জুলাই, ২০১৯, ৮:৪০ পূর্বাহ্ণ - বিবিসি ফ্লাই
২৫, জুলাই, ২০১৯, ১২:৫৩ অপরাহ্ণ - লতিফা বেগম
৩১, আগস্ট, ২০১৯, ৫:৩৬ অপরাহ্ণ - মিম অক্তের
২৮, জুলাই, ২০১৯, ২:০৪ অপরাহ্ণ - ঈশা বিশ্বাস
১৫, আগস্ট, ২০১৯, ৬:১৫ অপরাহ্ণ - Sumi ShaRmin
সাম্প্রতিক লেখাসমূহ »
১৭, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১২:১৭ অপরাহ্ণ - রূবা রাণী
১৫, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ১১:০৮ অপরাহ্ণ - স্পর্শা চৌধুরী
১৫, সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৭:২৭ অপরাহ্ণ - Papre akther